জার্মানিতে আসার শেষ সময়ের স্মৃতিচারন

জার্মানিতে আমার আসা নিয়ে বেশকিছু পোষ্ট লিখেছি, এবার চিন্তা করেছি কয়েকটি পোষ্ট লিখবো একটু ভিন্ন বিষয় নিয়ে। জার্মানি যাওয়ার প্রস্তুতি বা যাওয়ার প্রাক্কালে আমার ব্যাক্তিগত জীবনে একটা প্রভাব পরতে শুরু করে। মূলত এই বিষয়গুলো নিয়েই আজকের রচনা।

আমাদের বিয়ের পরে আমরা কখনো আলাদা থাকতাম না, শুধুমাত্র মিশুর (আমার স্ত্রী) পরীক্ষার সময়টা আর আমার ড্রাইভিং লাইসেন্সের পরীক্ষার জন্য ঝিনাইদহ যাওয়ার একদিন আমরা আলাদা ছিলাম। আমরা অনেক সুখী ছিলাম। সেই আইস এজ মুভিটার ইঁদুর কাপলটার মত বলতে হয় আমরা অনেক স্টুপিড এজন্যই হয়তো আমরা সুখী। জার্মানি আসার ঠিক আগের দিনটা আমার জীবনের সবথেকে খারাপ দিনগুলোর একটা।  শুধুমাত্র আমার নয় মিশুর জন্য আরও অনেক বেশি কষ্টের। ওর কষ্টগুলো আমি বুঝতে পারি। বাপের এক সময়ের ভয়ানক আদুরে মেয়েটার আবেগ অনুভূতির কাছে বাস্তবতা সবসময় হেরে যায় কিন্তু আমি বাস্তবতাকে হারতে দিতে পারি না! জোর করেই আবেগকে হারিয়ে দেই। এজন্য আমাদের ঝগড়াঝাটিও কম হয়নি। ওর কথা “আমার এত টাকা পয়সা গাড়ি বাড়ি লাগবে না, যা আছে খেয়ে পরে চলে গেলেই হবে” আমি বিয়ের পর ভাবতাম এমনি এমনি মনেহয় বলে কিন্তু পরে দেখলাম আসলে মন থেকেই বলে। আমি পারি না, আমার অনেকিছু লাগবে। একবার যখন এ পথে পা বাড়িয়েছি তখন শেষ দেখতে ইচ্ছে করে।

আগে থেকেই ট্রেনের টিকেট কাটা ছিল পরদিন সকালে চাটমোহর থেকে ঢাকা যাওয়ার ট্রেন। রাত থেকেই মিশু কান্নাকাটি করা শুরু করলো। সে তীব্র কান্নাকাটি আমি চিন্তায় পরে গেলাম যেতে পারবো তো? রাতে অনেক বুঝিয়ে শুনিয়ে ঘুম পাড়ায় দিলাম। সকালে উঠে তার চোখের দিকে আর তাকাতো যায় না, অবিরাম ঝর্নাধারা দেখতে দেখতে যাওয়ার সময় ঘনিয়ে আসতে লাগলো। আমি ছোটবেলায় খুব আবেগী ছিলাম একটুতেই কান্না ধরতাম। এখন কান্না আসতে চায় না, ইট পাথরের বড় বড় দালানে অফিস করতে করতে কোথায় যেন হারিয়ে গিয়েছে।

দেখতে দেখতে যাওয়ার সময় চলে আসলো, আমরা দোতলে থেকে নীচে নামলাম, হঠাত দেখি শশুড়ী, শাশুড়ী আর মিশুর বড় বোন আমাকে বিদায় দিতে এসেছে। মিশুর কান্না কিছুতেই থামছেনা। সবাই ধমক টমক দিয়ে আপাতত থামালো। আমি সবাইকে বিদায় দিয়ে রওনা হলাম। সারা রাস্তা বুঝাতে বুঝাতে আসলাম মাত্র দুমাস তারপরই তোমাকে নিয়ে আসবো। ঢাকাতে আসার পর বসুন্ধরাতে ঢুকামাত্রই বুকটা ফাকা হয়ে গেল। অচেনা লাগতে লাগলো সবকিছু। এই বসুন্ধরাতে ৫ টা বছর কাটিয়ে দিলাম আর আজকে এখানে আমার কিছুই নাই।

রাতের ডিনার করার কথায় আনাম ভাই বাবর ভাইদের সাথে, জামানের সামনে অপেক্ষা করছি, কাউকে ফোন না দিয়ে চুপচাপ দাড়ায় থাকলাম। কোনকিছুর মুড নাই! যে আনাম ভাই কোন কোন দিন সময়মত উপস্থিত হয়েছে গুনে গুনে বলে দেয়া সম্ভব সে আনাম ভাই ঠিক সময়মত আমাকে ফোন দিয়ে খুজে নিল। সময়মত বাবর ভাই তার স্কুটি নিয়ে হাজির। আমার FZs এর কথা মনে পরে কষ্টের পরিমান আরও বেড়ে গেল। গাড়ি, মটরসাইকেল, একটা ভাল জব, সাজানো সংসার সবই তো ছিল কেন জার্মানিতে যাওয়ার এপ্লাই করলাম তা বার বার খোঁচা দিতে লাগলো মনের মধ্যে। আমরা জামানে বসলাম। আমরা সেই বহু আগে থেকে গিকহাউজ মেম্বার। বিভিন্ন সময়ের সুখ দুঃখের কথা বলতে বলতে সময় কেটে গেল। ইচ্ছা ছিল যাওয়ার আগে সবাইকে খাওয়াবো কিন্তু আনাম ভাই গররাজি, উনি খাওয়াবেন। আমাদের বিল দেয়া নিয়ে সবসময়ই এমনটা হত খালি দুষ্টু বাচ্চাগুলা চুপচাপ আকাশ বাতাশের দিকে চেয়ে থাকতো। এ নিয়ে অবশ্য আমাদের কখনো আপত্তি ছিল না। ছোট মানুষ মাত্র পড়াশুনা করে ওরা বিল দিবেই বা কেন। মাঝে মাঝে ওরা যে বিল দিত না তা অবশ্য না। বন্ধুদের মধ্যকার সেই আন্তরিকতাগুলো এখন অনেক মনে পরে! এখানে এসবের বালাই নেই!

জার্মানি আসার আগে বন্ধুদের সাথে শেষ আড্ডা, জামান রেস্টুরেন্ট বসুন্ধরা

লাগেজ নিয়ে একটা রিক্সায় উঠলাম গন্তব্য জিতুর বাসা। জিতু আমার পাবনার বন্ধু আপাতত একদিন ওর বাসাতেই থাকবো। আমার বেশিরভাগ ফার্নিচার আর ওয়াশিং মেশিন ওর কাছে বিক্রি করে দিয়েছি। ওর বাসায় ঢুকে বুকটা আর্দনাত করে উঠলো। যেদিকে তাকাই সেদিকেই আমাদের স্মৃতিজরিত জিনিসপত্র। আমি বাকপটু মানুষ, জিতু আর শোভনের সাথে গল্প করতে করতে রাত গভীর হয়ে গেল। মিশুর সাথে কথা বলে ঘুমাতে গেলাম, মাত্র কয়েক মিনিট বিছানায় ছিলাম, বুকটা চাপ ধরে আসতে থাকলো কথা বলতে পারছিলাম না, নিশ্বাস আটকে আসলো তারাতারি উঠে বসলাম। দৌড়ে পাশের ঘরে গিয়ে দরজা আটকায় দিয়ে মিশুকে ফোন দিয়ে কাঁদতে লাগলাম। জীবনের সব দুঃখ কষ্ট একসাথে গ্রাস করে ধরলো। কেন বাইরে যাচ্ছি তার উত্তর খুঁজে ফিরতে লাগলাম।

সকালে ঘুম থেকে উঠে খাওয়া দাওয়া করে অফিসে গেলাম, আগে যে অফিসে ডেম কেয়ার লুক নিয়ে ঢুকতাম, গেটে চেকইনের ধার ধারি নাই কোনদিন, সেখানে ঢুকতে কেমন যেন অসস্তি লাগছিল। কেন যেন মনেহচ্ছিল এখানে কোনকালেই ছিলাম না। অফিসের প্রতিটা মানুষ অচেনা লাগছিল। আস্তে করে গিয়ে একটা চেয়ারে বসে পরলাম। অনিরুদ্ধ, আনাম ভাই, মিলন ভাই, ইকরাম ভাই সবাই পেয়ে অভিবাদন জানালো কিন্তু আমি খুশি হতে পারলাম না!

A farewell to Telenor Health

HR তানিম ভাইরে বললাম এক্সপেরিয়েন্স সার্টিফিকেটটা দিতে উনি ধরায় দিল আমি অফিস থেকে চলে যাচ্ছিলাম তানিম ভাই বললো থাকতে হবে, আমাকে ফেয়ারওয়েল দিবে। যদিও ফেয়ারওয়েল নেয়ার ইচ্ছা ছিল না তারপরও বসে গেলাম। সবাই বলে ভিসা হওয়ার পরপরই নাকি অনুভূতিটা চেঞ্জ হয়ে যায়, খুশিটা হারিয়ে দেশ ছাড়ার কষ্ট চেপে ধরে। আমার বিষয়টা অন্যরকম, আমি এতটাই যন্ত্রনায় ছিলাম বিভিন্ন সমস্যার কারনে যে ভিসা পাওয়ার পর থেকে খুশিই ছিলাম। মন খারাপের শুরু আসার আগের দিন! যাইহোক ফেয়ারওয়েল অনুষ্ঠানটা অনেক সুন্দর হল, আমার দেখা সবথেকে সুন্দর ফেয়ারওয়েলগুলোর একটা আমি পেলাম দেখে মনটা একটু সান্তনা পেল। কিছু গিফট ভাউচার উপহার হিসেবে পেলাম অফিসের সৌজন্যে।

অফিস থেকে বের হয়ে কিছু কেনাকাটা করে জিতুর কাছে দিলাম ও বাসায় পৌছে দিবে। আমার ফ্লাইট ৭ টায়, ৩ টার দিকে বিমানবন্দরে উপস্থিত হব। আগে কখনো আন্তর্জাতিক বিমানে উঠি নাই, জানিও না কি কি করতে হবে। সবসময় মাথায় ছিল I will figure it out!. সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে বিমানে উঠে পরলাম।

সকল ভালকিছুর পেছনের গল্পটা অনেক কষ্টের, অনেক বাধাবিপত্তি পেরিয়ে আমাদেরকে জয় করতে হয়। আমার বাবা মা খুবই শক্ত, দীর্ঘ ৭ বছর আমি বাড়ির বাইরে, তারা নিজেদের মানিয়ে নিতে পারে সহজেই। আমার এখানে আসার কারনে সবথেকে কষ্ট করেছে আমার স্ত্রী। গ্রাম্য পরিবেশে স্বামী ছাড়া একটি মেয়ের প্রতিটি দিন যে কত কষ্টে কাটে তা আমি বাইরে না আসলে বুঝতাম না।

আজ এপর্যন্তই, এর পরের গল্পটা হবে প্রথম বাড়ি যাওয়া নিয়ে। ততক্ষন অপেক্ষায় থাকুন 🙂

শুভরাত্রি!

  • পান্থ বিহোস

    অদ্ভুত, ভাই। মনটা সত্যিই খারাপ হয়ে গেলো। এই কষ্টটা নিতে পারবো না বলেই কত কতবার যে বাইরে যাওয়ার প্ল্যান নিয়েও ক্যানসেল করলাম!

    প্রিয় মানুষের সান্নিধ্য ছেড়ে যাওয়াটা আসলেই কষ্টের। আর যখন জানা যায়, চাইলেই হুট করে ফেরত আসতে পারবো না, তখন কষ্টটা যেন দ্বিগুন/তিনগুন হয়ে যায়।

    আরও লেখেন ভাই, চাপা থাকা কষ্টগুলো লাঘব হওয়ার জন্য এর বিকল্প নেই। শুভকামনা আর পরের অংশের অপেক্ষায়… 🙂

    • ধন্যবাদ ভাই, কষ্টগুলো লিখলে একটু কমে সত্যি, আরও লিখবো ইনশা আল্লাহ, আপনার কথায় অনুপ্রানিত হলাম 🙂

  • Jamal Uddin

    Bhai, বলার মত কিছু খুঁজে পাচ্ছি না। Eagerly waiting for next article.

    • শিঘ্রই আবার লিখবো 🙂